এ কে এম শিহাব অনূদিত গ্রেগরী পেট্রোভিচ ম্যাক্সিমফ প্রণীত এনার্কো-সিন্ডিক্যালিজম পুস্তকের ধারাবাহিক- ৫

এ কে এম শিহাব অনূদিত গ্রেগরী পেট্রোভিচ ম্যাক্সিমফ প্রণীত এনার্কো-সিন্ডিক্যালিজম পুস্তকের ধারাবাহিক- ৫

অধ্যায়ঃ ৫ অন্তবর্তীকালিন সময়ে শ্রম

সামাজিক রীতিনীতি ও বিধি বিধান এমন ভাবে গড়ে তুলা হবে যেখানে বস্তুগত ও স্বাধীনতার নিশ্চয়তা থাকবে, সেখানে শ্রমের অধিকার রক্ষার জন্য  আর লড়াই করতে হবে না ।  শ্রম শোষণের সুযোগ চিরতরে বন্দ্ব করে দেয়া হবে, আর্থ সামাজিক কাঠামোতেই তা সুনিশ্চিত করা হবে। যেন কেহই শ্রম শোষণের শিকার না হন। এমন একটি সামাজিক পরিবেশ গড়ে উঠবে যেখানে প্রতিটি মানুষ প্রত্যেকের অধিকারের প্রতি শ্রদ্বাশীল হবেন ।

উৎপাদকগণ নিজেদের এই চাহিদার  প্রতি যত্ন নেবেন, যেমন প্রযোজক কমিউন অবশ্যই মেডিকে-স্যানিটারি অ্যাসোসিয়েশনের বৈজ্ঞানিকভাবে নির্ধারিত প্রবিধানগুলিকে কঠোরভাবে অনুসরণ করবেন ।

শিশু শ্রমকে বিলুপ্ত করে দেয়া হবে। সামাজিক ভাবে ১৮ বছর পর্যন্ত সকলকে সমন্বিত শিক্ষা গ্রহন করতে হবে, যেন তারা চলমান উৎপাদন কর্মে নিয়োজিত হবার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেন । এভাবে শিল্পে শিশু শ্রমের সমস্যা অস্তিত্ব বন্ধ হয়ে যাবে। মহিলা শ্রম বৈজ্ঞানিকভাবে নির্ধারিত প্রবিধান অনুযায়ী সংগঠিত হবে।

স্বাভাবিকভাবেই, নতুন সমাজকে শ্রমের সুরক্ষার জন্য বিশেষ প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে না - এটি হল জনস্বাস্থ্য কর্মীদের ফেডারেশনের কাজ, যারা সমগ্র সমাজের নিয়ন্ত্রণে কাজ করবে এবং বিশেষ করে উতপাদকদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করবে ।

কাজের সময় প্রশ্নে, ছয় ঘন্টা কাজের দিন নিয়ে সমাজ প্রথম ধাপে শুরু হবে। এই বিষয়ে কিছু কম বেশী করতে হলে  উৎপাদক  সম্প্রদায়ের ও জনসাধারণের কর্মীদের ইউনিয়নগুলির সম্মেলন দ্বারা তা নির্ধারিত হবে এবং সামগ্রীকভাবে, সমাজের জন্য প্রয়োজনীয় পণ্যগুলির পরিমাণ, কর্মরত এবং বেকার উত্পাদকের সংখ্যা এবং উৎপাদন প্রক্রিয়ার উন্নতির উপর নির্ভর করবে। এই শর্তাবলী, এবং দেশের ভূমি সামাজিকীকরণের ডিগ্রী, সংহত শ্রমের সম্প্রসারনের  গতি নির্ধারণ করবে।

রূপান্তরিত সময়ের মেয়াদে ভাড়াটে শ্রমিকদের বিলুপ্তি  ঘটবে। উৎপাদক একজন ভাড়াটে কর্মী হবেন না, তবে  উৎপাদক  কমিউনের সক্রিয় ও সমান সদস্য হবেন, যার কাছ থেকে কেউ অতিরিক্ত মূল্যের মূল্য কমাবে না। প্রতিটি কাজে অংশগ্রহণকারী মজুরি পাবে না, কিন্তু জনসাধারণের সম্পদের সমান অংশ যা কারখানায় উৎপাদন করে সে সকলের সাথে সমানভাবে অংশীদার হবে। জনসাধারণের সম্পদের এই অংশ, যা পণ্য ও অর্থ উভয় ক্ষেত্রেই বিতরণ করা হবে, এবং সাধারণ কংগ্রেসের দ্বারা খুব তাড়াতাড়ি বৈজ্ঞানিকভাবে নির্ধারণ করা হবে, তা নির্দিষ্ট পরিমাণে থাকতে পারে না। তার বৃদ্ধি বা হ্রাস জনসাধারণের সম্পদে কর্ম দক্ষতার ডিগ্রির উপর নির্ভর করবে, যা সাম্যবাদি অর্থনীতির সদস্যদের উপর প্রযুক্তিগত অগ্রগতি ছাড়াও বাস্তবতার উপর নির্ভর করবে।

প্রতিটি ব্যক্তি, তার প্রাক্তন সামাজিক অবস্থান থেকে স্বাধীন ভাবে কাজ করার অধিকার ভোগ করবে এবং তা ব্যবহার করবে। সমাজের উপর এই মৌলিক নীতিটি যুক্তিসঙ্গত উত্পাদনশীল বা সামাজিকভাবে কার্যকরী ভাবে কাজ সহ সকলকে প্রদান করা হবে এবং এটির অক্ষমতার ক্ষেত্রে, অন্যের সাথে সমান স্তর তাদের বজায় রাখতে হবে, যতক্ষণ না এটি তাদের কাজ করতে পারে । যারা কাজ করতে সক্ষম, তাদের অহংকারের অধিকার ব্যবহার করার ইচ্ছা, নতুন সমাজ মানুষের এই অধিকার সীমাবদ্ধ করার কোন প্রচেষ্টা করবে না । বিপ্লবী সমাজ কর্ম বিমুখ লোকদেরকে তাদের ক্ষুধায় মারা যাওয়া থেকে  বাঁচানোর জন্য চাপ দিবে না। একটি সমাজ যার মূল ভিত্তি হল কাজ, অবশ্যই এই নীতিটি পালন করতে হবে: "যে নিজের ইচ্ছার কাজ করে না সে খাবে না।"

সমাজের জন্য সামাজিক সংস্থার জন্য বিশেষ নতুন করে প্রতিষ্ঠান তৈরি করার দরকার নেই। যেহেতু এটি সকলের কাজ করার প্রত্যাশা করে, এটি সর্বনিম্ন এবং সর্বাধিক কর্মক্ষম বয়সের সীমা নির্ধারণ করবে, তার আগে এবং পরে সমস্ত লোককে, অন্যদের সাথে সমানভাবে সযোগ প্রদান করতে হবে, নিজেদের অস্তিত্বের প্রয়োজনীয়তা এবং জীবনের সুবিধার জন্য কাজ করতে হবে। একইভাবে, সমাজ  নানা ধরনের প্রতিবন্দ্বি এবং অসুস্থদের জন্য সুযোগ প্রদান করবে।

0 Comments 0 Comments
0 Comments 0 Comments